1. dailybanglarkhabor2010@gmail.com : দৈনিক বাংলার খবর : দৈনিক বাংলার খবর
রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৫৯ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
কেএমপি’র লবণচরা থানা পুলিশ ১২ পিস স্বর্ণের বার উদ্ধার করে ১ জন গ্রেফতার যোগীপোল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন বাগেরহাটে দুই পরিবারের লোকজনকে অজ্ঞানকরে মালামাল লুট, হাসপাতালে ভর্তি ১৬ জন বাগেরহাটে ছেলের বিরুদ্ধে বাবাকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ বাগেরহাটের আগেয়াস্ত্রসহ আটক ২ বাগেরহাটে দোকান ভাংচুর, মালামাল লুটের অভিযোগ এবার ইরানপন্থি মিলিশিয়া বাহিনীর ঘাঁটিতে হামলা ঈদযাত্রায় ৩৯৯ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪০৭ জন, আহত ১৩৯৮-যাত্রী কল্যাণ সমিতি চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা ৪২.৩, হিট স্ট্রোকে একজনের মৃত্যু এবার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে তরুণীর আপত্তিকর ভিডিও ভাইরাল

উপহার পাওয়া ফিটনেসহীন গাড়িকে অ্যাম্বুলেন্স বানালেন হিরো আলম

  • প্রকাশিত: রবিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ১৬৭ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক::নির্বাচন করে আলোচিত আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলম উপহার হিসেবে পাওয়া গাড়িকে অ্যাম্বুলেন্স বানিয়ে উদ্বোধন করেছেন। নোয়া ১৯৯৮ মডেলের গাড়িটির ফিটনেস সনদের মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০১৩ সালের ১৫ জুলাই।

২০১৩ সালের ১৮ মার্চের পর থেকে ওই গাড়ির কর বকেয়া আছে। বর্তমানে গাড়িটির বিপরীতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) পাওনা প্রায় পাঁচ লাখ টাকা। মাইক্রোবাসকে অ্যাম্বুলেন্সে রূপান্তর করার ক্ষেত্রে কোনো অনুমতিও নেননি তিনি।

শনিবার বিকেলে বগুড়ার এরুলিয়া এলাকায় ফিতা কেটে অ্যাম্বুলেন্স–সেবা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন হিরো আলম ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা হিরো আলম। অ্যাম্বুলেন্সটি বগুড়া সদর, কাহালু ও নন্দীগ্রামের দরিদ্র রোগী পরিবহনে নিয়োজিত থাকবে বলে এ সময় তিনি ঘোষণা দেন।

হিরো আলম ঢাকা-১৭ এবং বগুড়া-৪ ও বগুড়া-৬ আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থী হয়ে পরাজিত হন। ৩১ জানুয়ারি ফেসবুক লাইভে এসে হিরো আলমকে নিজের ব্যবহৃত নোয়া মাইক্রোবাসটি উপহার দেওয়ার ঘোষণা দেন হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার নরপতি গ্রামের শিক্ষক এম মখলিছুর রহমান। হিরো আলম হবিগঞ্জে গিয়ে গাড়িটি গ্রহণ করেন।

বকেয়া ও অনুমতির বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে হিরো আলম বলেন, ‘আরও দুটি অ্যাম্বুলেন্স পাওয়ার কথা আছে। সব কটি পেলে বিআরটিএর বকেয়া শোধ করব। আর বকেয়া শোধ করার পর অনুমোদন নেওয়া হবে।’

হিরো আলম বলেছেন, অ্যাম্বুলেন্সচালকের বেতন-ভাতা ও জ্বালানি খরচের জন্য সামর্থ্যবান রোগীদের কাছ থেকে ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা হারে ভাড়া নেওয়া হবে। তবে সামর্থ্য নেই এমন দরিদ্র রোগীদের অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া লাগবে না।

প্রথম দিকে সপ্তাহে তিন দিন করে ছয় দিন কাহালু ও নন্দীগ্রাম উপজেলায় অ্যাম্বুলেন্সটি থাকবে। পরবর্তী সময় বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে রাখা হবে। গরীব রোগীরা প্রয়োজনমতো অ্যাম্বুলেন্সটি ব্যবহার করতে পারবেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক বাংলার খবর
Theme Customized By BreakingNews