1. dailybanglarkhabor2010@gmail.com : দৈনিক বাংলার খবর : দৈনিক বাংলার খবর
রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৪:৫৭ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
পাইকগাছার ১০ হাজার কৃষকের মাঝে নারিকেল চারা, বীজ ও রাসায়নিক সার বিতরণ পাইকগাছায় লোনাপানি কেন্দ্রের আঞ্চলিক কর্মশালা অনুষ্ঠিত পবিত্র কাবা শরীফের চাবি রক্ষক সালেহ আল-শায়বার মৃত্যু হজের ফিরতি ফ্লাইট দেশে ফিরেছেন ৩৯২০ হাজি, সৌদিতে মৃত্যু ৩৫ বাংলাদেশি হাসিনা-মোদির দ্বিপাক্ষিক বৈঠক: ১০ সমঝোতা স্মারক সই ছাগলকাণ্ডে আলোচিত সেই ইফাত মাকে নিয়ে দেশ ছেড়েছেন ঢাকা-নয়াদিল্লি উভয়ের জন্য টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে সম্মত-প্রধানমন্ত্রী রাসেল ভাইপার নিয়ে আতঙ্ক নয়, সচেতনতা বাড়াতে হবে-পরিবেশ মন্ত্রণালয় খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার অবনতি, হাসপাতালে ভর্তি তিস্তার পানিবণ্টন নিয়ে মোদির আশ্বাস

গাজায় ২০ জনকে জীবন্ত কবর দেওয়ার অভিযোগ

  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৩৩ বার পড়া হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার খান ইউনিসের নাসের হাসপাতাল এবং গাজা সিটির আল শিফা হাসপাতালের পাশে গণকবরের সন্ধান মিলেছে। গণকবর থেকে এখন একের পর এক মরদেহ বের করা হচ্ছে। যেগুলোর বেশিরভাগই বিকৃত হয়ে গেছে।

যখন এসব গণকবর থেকে বেরিয়ে আসছে সাধারণ ফিলিস্তিনিদের মরদেহ। ঠিক তখনই সামনে এলো রোমহর্ষক ঘটনা। ফিলিস্তিন সিভিল ডিফেন্সের সদস্য মোহাম্মদ মুঘাইয়ের জানিয়েছেন, এসব গণকবরে পাওয়া মরদেহের অন্তত ২০ জনকে জীবিত অবস্থায় কবর দেওয়ার আলামত পেয়েছেন তারা।

তিনি বলেছেন, “১০টি মরদেহের হাত বাধা ছিল। অন্যদের শরীরে মেডিকেল টিউব সংযুক্ত ছিল। বিষয়টি নির্দেশ করছে তাদের খুব সম্ভবত জীবিত অবস্থায় কবর দেওয়া হয়েছে।”

সিভেল ডিফেন্সের এই সদস্য আরও বলেছেন, “যে ২০ জনকে জীবন্ত কবর দেওয়া হয়েছে বলে আমরা ধারণা করছি তাদের মরদেহ ফরেনসিক পরীক্ষা করতে হবে।”

খান ইউনিসের নাসের হাসপাতালের গণকবর থেকে শিশুদের মরদেহও উদ্ধার করা হয়েছে। মোহাম্মদ মুঘাইয়ের শিশুদের বিকৃত মরদেহের ছবি প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, “গণকবরে কেন শিশুরা? এসব প্রমাণ নির্দেশ করছে ইসরায়েলি সেনারা মানবতা বিরোধী অপরাধ করেছে।”

দুই সপ্তাহ আগে খান ইউনিস থেকে সরে যায় দখলদার ইসরায়েলের সেনারা। এরপর সেখানে ফিরে যান সাধারণ ফিলিস্তিনিরা। তারা গিয়ে দেখতে পান খান ইউনিসকে একটি ধ্বংসস্তূপে পরিণত করেছে দখলদাররা। তাদের বর্বরতা থেকে বাদ যায়নি হাসপাতালও। সাধারণ মানুষকে হত্যা করে হাসপাতালের পাশেই পুঁতে রেখেছে তারা।

খান ইউনিস এবং গাজা সিটিতে যখন গণহত্যার আলামত পাওয়া যাচ্ছে ঠিক তখনই গাজার সর্বশেষ নিরাপদস্থান রাফাহতে বর্বরতা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসরায়েল।

ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনীর (আইডিএফ) এক শীর্ষ কর্মকর্তা বুধবার (২৪ এপ্রিল) বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, গাজায় হামাসকে লক্ষ্য করে তারা হামলা চালাবেন। যদিও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এক্ষেত্রে বাধা প্রদান করেছে।

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর মুখপাত্র বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, রাফাহতে হামলার জন্য তারা প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তবে কবে হামলা চালানো হবে সে তারিখটি স্পষ্ট করেননি তিনি।

ওই ইসরায়েলি সামরিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন তারা ৪০ হাজার তাঁবু কিনেছেন। যেগুলোর একেকটিতে ১০ থেকে ১২ জন থাকতে পারবেন। এসব তাঁবুতে রাফাহতে অবস্থানরত ফিলিস্তিনিদের নিয়ে আসা হবে।

কয়েকটি ভিডিওতে দেখা গেছে রাফাহ থেকে ৫ কিলোমিটার দূরের খান ইউনিসে সারি সারি তাঁবু স্থাপন করা হয়েছে। স্যাটেলাইট প্রতিষ্ঠান ম্যাক্সার টেকনোলোজিসের ছবিতে দেখা গেছে, যেখানে তাঁবুগুলো স্থাপন করা হয়েছে সেই জায়গাটি কয়েক সপ্তাহ আগেও খালি ছিল।

সূত্র: আলজাজিরা

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক বাংলার খবর
Theme Customized By BreakingNews